আঙিনা

প্রবাদ প্রবচন –

১) রোদে ধান
ছায়ায় পান (রোদ ভরা জমিতে প্রচুর ধান ও ছায়াভরা জমিতে প্রচুর পান হয়)

২) মনে করি খাবো চিড়া দৈ
বিধাতা লিখেছেন ধানশুদ্ধ খৈ
(যা মনে করি ভাগ্যে তা হয় না)

৩) বাঘের দেখা
সাপের লেখা
(কপালে থাকলে এগুলো ঘটে)

৪) নিধনের বিধান নাই
(পরমায়ু শেষে আর কোন ব্যবস্থা নাই)

৫) না গজাতে ঘুন ধরে
না উঠতে আছাড়
বাসরেতে পতি মরে
বাসি বে’ তে রাঁড়
(কোন কাজে হাত দেবার আগে প্রচন্ড বাধায় কাজ নষ্ট হওয়া)

৬) না ঘেমে যাবে দিন
ধার কল্লে (করলে) হবে ঋণ
(সহজে ঋণ করতে নেই)

৭) বুদ্ধির গুণে হেরে যায়
বুদ্ধির গুণে তরে যায়
(বুদ্ধির দোষে মানুষ সফল হতে পারে না,
আবার বুদ্ধির জোরে মানুষ অনেক কঠিন কাজ উৎরে যায়)

৮) নিরগুণ পুরুষের তিনগুণ ঝাল
পরনে গামছা গায়ে ঠাকুরদাদার শাল
(যে পুরুষের গুণ নেই, কাপড় কেনার মুরোদ নেই,
সে গামছার ওপর ঠাকুরদাদার শাল জড়িয়ে ঘুরে বেড়ায়,
আর ঈর্ষায় অন্যের ওপর ঝাল ঝাড়ে)

৯) আহ্লাদে আটখানা
লেজা মুড়ো নিয়ে দশখানা
(সামান্য বিষয় নিয়ে অযথা আনন্দ প্রকাশ করে,
তার সম্বন্ধে বিদ্রুপ ছলে)

১০) যে পাতে খায়
সে পাতে ফুটো করে
(অকৃতজ্ঞ ব্যক্তি)

১১) গাছেরও খাবে
তলারও কুড়োবে
(যে কাউকে কিছু না দিয়ে, একই সবকিছু গ্রাস করতে চায়)

১২) অকেজোর তিন কাজ বড়
ভোজন নিদ্রা ক্রোধ দড়
(যে কোন কাজের নয়, সে খেয়ে ঘুমিয়ে
রাগ করে সময় কাটায়)

১৩) যার বিয়ে তার মনে নেই
পাড়া পড়শির ঘুম নেই
(যার কাজ তার তাড়া নেই, অন্যের বেশি মাথা ব্যাথা)

১৪) একবারের রোগী
আরেকবারের রোজা
(একবার থকিলে আরেকবার সাবধান হয়)

১৫) জন্মে দেখেনি লোহার মুখ
কোদালকে বলে গুণছুঁচ
(না জানা বিষয়ে মন্তব্য করে হাস্যস্পদ)

Leave a Reply