আঙিনা

‘ইংরেজি টিংরেজি কিছু’

(আগের পর্বের লিঙ্ক)

গত পর্বে আলোচনা করেছিলাম amelioration এবং pejoration এই দুই প্রক্রিয়া নিয়ে। Amelioration অর্থাৎ যে-প্রক্রিয়ায় একটা শব্দ একটা সদর্থক শব্দে পরিণত হয়। আর pejoration হল এর ঠিক বিপরীত প্রক্রিয়া। দ্বিতীয়টার উদাহরণ গত দিন দিয়েছি। আজ তবে প্রথমটা হোক।

Nice শব্দটা ত অতিই common তাই না? এমন কি কেউ আছেন যিনি এই শব্দটি মাঝেমধ্যেই ব্যবহার করেন না? এর অর্থ, মানে বর্তমান অর্থ কী? সবাই জানে। পছন্দসই, উপভোগ্য, আকর্ষণীয়, ভালো ইত্যাদি। কিন্তু এর আদি অর্থ কী ছিল জানেন? অনেকেই জানেন না। Nice এর আদি অর্থ ছিল ignorant. বাঙলায় ‘অজ্ঞ’! হ্যাঁ ঠিকই পড়েছেন। শব্দটি এসেছে ল্যাটিন শব্দ nescius থেকে। শুধু nice নয়, এই ল্যাটিন শব্দটি আরও একটি আধুনিক ইংরেজি শব্দেরও উৎসঃ nescience. এই শব্দের অর্থ অজ্ঞতা। অর্থাৎ এই দ্বিতীয় শব্দটি কিন্তু আদি অর্থটিকে ছাড়েনি। তবে একই শব্দ-জননীর সন্তান nice কেমন করে সদর্থক হয়ে উঠল? দেখা যাক।

Nescius ল্যাটিন থেকে প্রথমে গেল Old French এ। তারপর সেখান থেকে Middle English (একাদশ শতকের শেষ দিক থেকে পঞ্চদশ শতক পর্যন্ত সময়ের ইংরেজি) হয়ে Modern English এ তার প্রবেশ। এবার, আধুনিক ইংরেজিতে তার অর্থ প্রথম দিকে কী ছিল তা বলা খুব শক্ত। কিন্তু, অভিধান বলছে, চতুর্দশ শতক শেষ হওয়ার আগেই এই শব্দ বেশ কয়েকটি অর্থ অর্জন করে নিয়েছিল। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ একটি ছিল, dissolute অর্থাৎ অসংযমী যৌনাচারে লিপ্ত /অভ্যস্ত, লাম্পট্যদোষে দুষ্ট ইত্যাদি। এটা আমরা পাচ্ছি সপ্তদশ শতকের একটি লেখায়। আবার, অদ্ভূত ব্যাপার, এই একই শব্দ বিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকেই mean করছে chaste. Chaste অর্থাৎ পবিত্র। এই পবিত্রতাও কিন্তু যৌনতা সংক্রান্তই। অর্থাৎ এমন নারী যাঁর কুমারিত্ব ‘নষ্ট’ হয়নি, অথবা যিনি নিজের শরীর নিজের স্বামী ছাড়া কাউকে দেননি /দেন না, ইত্যাদি। প্রায় একই সময়ের অন্য একটা লেখায় আবার nice এর অর্থ ‘খুব যত্নের এবং সতর্কতার সঙ্গে করা হয়েছে এমন কিছু’।

যাই হোক, মোদ্দা কথা হল গত কয়েকশ বছরে nice শুধু ভালো অর্থেই ব্যবহৃত হয়ে এসেছে এবং, বেশিরভাগ সময়েই ব্যাপারটা এত অস্পষ্ট যে, কোনো কিছুর প্রশংসা করে তাকে nice বললে স্পষ্ট করে তার সম্পর্কে কিছুই বলা হয় না। তাই, মজার কথা, অনেক ভাষা শিক্ষকই ছাত্রেরা এই শব্দ লিখলেই ঘ্যাঁচ করে কেটে দেন। Because it is vague, unspecific. যাকগে ‘অজ্ঞ’ থেকে ‘সুন্দর’, ‘বেশ’, ‘ভালো’ ইত্যাদিতে পরিণতি লাভ যে amrlioration তা নিশ্চয়ই স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে! তবে, আমার মনে হয়, পরবর্তী শব্দের আলোচনা শুরু করার আগে, আরেকটা তথ্য এখানে দিয়ে দেয়া উচিত। Nice নামে একটা biscuit আছে না? ওটা কিন্তু Nice হলেও নাইস নয়। কেউ কেউ চমকে উঠলেন কি? চমকাবেন না। ফ্রান্সে একটা শহর আছে কিনা ‘নিস’ বলে? বানান কী? হ্যাঁ, Nice. এই biscuit টির নাম এই শহরটিরই নামে। তাই, আমরা কিন্তু নাইস biscuits খাই না। খাই ‘নিস biscuits’!

আমাদের পরবর্তী শব্দটিও খুবই common. শব্দটি হল Smart. চলুন আগে এর বর্তমান, সমসাময়িক অর্থগুলো নিজেদেরকে আরেকবার মনে করিয়ে দিই। তারপর ইতিহাসের দিকে তাকানো যাবে।
১. বুদ্ধিমান, মেধাবী
২. চালাক, সেয়ানা
৩. পরিচ্ছন্ন, গোছানো, সুশৃঙ্খল
৪. উচ্চ রুচির কিছু
৫. স্বয়ংক্রিয়
৬. দ্রুত
৭. শক্তিশালী (আকর্ষণ ইত্যাদি)
৮. বহুমুখী ব্যবহার আছে যার এমন কিছু ইত্যাদি।

এবার চলে যাই আদিতে। শব্দটি এসেছে German শব্দ Schmerzen থেকে। এটি একটি adjective. এটির সঙ্গে সম্পর্কিত verb ‘smeortan’ ( প্রাচীন-ইংরেজির একটি শব্দ) এর অর্থ ছিল ‘তীক্ষ্ণ ব্যথা দেয়া’! তাহলে সেটা আজ সব হিংস্রতা বিসর্জন দিয়ে কাঙ্ক্ষিত সব বিষয় mean করা শুরু করল কেমন করে? বিবর্তনটির ইতিহাস কী? খুঁজে দেখব সামনের দিন।

পড়তে থাকুন ‘কাঞ্জিক’. পুরোটাই পড়ুন, ভালো লাগবে।

Leave a Reply